খাঁটি খামারীর খাঁটি দই –” বকুলের দই “

0
586

ভেজালের মহা যজ্ঞের এই যুগে এই খাঁটি জিনিস সবাই আশা করে।কিন্তু সেই আশা তো সোনার হরিন!সেই সোনার হরিনকে হাতের নাগালে এনে দেওয়ার ক্ষুদ্র প্রয়াস “বকুলের দই”।

চোখে স্বপ্ন আর বুকে সাহস নিয়ে এই উদ্দ্যমী যুবক, নিজের খামারে দুধ দিয়ে, নিজেই দই বানিয়ে বিক্রি শুরু করেন।

চাহিদা দিন দিন বাড়ার কারনে এখন নিজের খামারের দুধের দই দিয়ে চাহিদা মিটাতে পারে না।তাই তিনি অনেক কষ্টে খামার বাচাই করে খাঁটি নিশ্চিত হয়ে দুধ সংগ্রহ করেন।আর সারা রাত জেগে দই তৈরি করছেন।এর পর দিনে বিক্রি।

শুধু দই নয়,গরম গরম দুধও পাওয়া যাবে উনার দোকানে।মানুষের হাতে চা নয়,দুধ তুলে দিয়েই উনি শান্তি পান।

তার কাণ্ড দেখে কবি নজরুলের কথা মনে পড়ে,যিনি একাই একটি পত্রিকার সংবাদ সংগ্রহ,টাইপ,প্রিন্ট থেকে শুরু করে হকার হয়ে ঐ পত্রিকা বিক্রি করতেন।

এই যুবকের উদ্যোগ থেকে একটি বিষয় উল্ল্যেখ করা যায়।তা হল ডেইরী খামার করে শুধু দুধ বিক্রি করে ব্যবসা চালানোর দিন শেষ।এখন সময় এসেছে,দুগ্ধ জাত পন্য নিয়ে চিন্তা করার।

আসুন এই যুবকের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাই।উনি যেন সফল খামারী এবং সফল উদ্যোগতা হতে পারেন।আপনার উতসাহ,উনার ভবিষ্যতে অনুপ্রেরনা হয়ে থাকবে।

ডা:সুচয়ন চৌধুরী
উপজেলা প্রাণুসম্পদ কর্মকর্তা(অ:দা)
রাঙ্গামাটি সদর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here