অনলাইনে কেনার সময় কোরবানীর পশুর “সুস্থতা” কিভাবে বুঝবেন?

0
1099
Examination of bull in on line marketing

কোরবানীর  এ সময়ে প্রতিবছর গরুর বাজারগুলো থাকে জমজমাট ।কিন্তু  এ বছর করোনার ভয়াবহতার কারনে পশুর হাটগুলোতে যাওয়ার ব্যাপারে অনেক ক্রেতারই রয়েছে অনিহা।তারা অন লাইনেই অনেকে পছন্দ করে কিনে নিচ্ছেন তাদের পছন্দের পশুটি।খামারীরাও দিনের পর দিন যত্ন করে তৈরি করা গরুটি সঠিক মূল্যে তুলে দিচ্ছে ক্রেতার হাতে। তবে এই ব্যবস্থায় গরু ক্রয়ের ক্ষেত্রে সঠিক সুস্থ গরুটি যাচাই বাচাই করে ক্রয় করা খুব জরুরী।তাই সেই বিষয়ে আপনাদের কিছু কৌশল আজকে শেয়ার করব।

বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অন লাইনে ছবি দেখেই আপনারা পছন্দ করেন আপনার কোরবাণীর গরুটি। অনেক বিক্রতা ভিডিও দিয়েও ক্রেতাকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেন ক্রেতাকে শুধু মাত্র ছবি দেখে বা ভিডিও দেখে গরু ক্রয় করা উচিত নয়। অনলাইনে ছবি দেখে পছন্দ হলে ক্রেতার সাথে কথা বলে গরুটি স্বচোক্ষে দেখে নেওয়া উচিত। আর যাদের সেই সুযোগ নেই তাদের ছবি বা ভিডিওর উপরই নির্ভর করতে হবে।আমি ছবি/ভিডিও দেখে এবং সরাসরি গরু দেখে কিভাবে গরুর সুস্থতা নিশ্চিত হওয়া যায় সেই দুটি বিষয়ই আলোচনা করব।

গরুর পা এর অবস্থান
 ছবি বা ভিডিও দেখে গরু কিনতে হলে আপনাকে ছবি দেখেই বেশ বুঝতে হবে গরুটি আপনার জন্য উপযুক্ত কিনা। ছবিতে বা ভিডিওতে আপনি খুব ভাল করে খেয়াল করে দেখবেন গরুটি তার চার পায়ের উপর সমানভাবে ভর করে দাড়িয়েছে কিনা। যদি তার কোন পায়ে সমস্যা থাকে বা ব্যাথা থাকে তাহলে গরুটি ঐ পায়ের উপর কম ভর দিবে এবং অন্যান্য পায়ের উপর বেশি ভর দিয়ে দাড়াঁবে। দক্ষ ক্রেতা একটু ভালভাবে দেখলেই তা বুঝতে পারবেন। প্রয়োজনে ছবি জুম করে দেখে নিতে পারেন।

পায়ের ক্ষুর পরীক্ষাঃ
যেহেতু পায়ের কথা আসল, তাহলে বলি– ছবি জুম করে প্রতিটি পা এবং পায়ের ক্ষুর আলাদা আলাদা ভাবে চেক করে নিন। অসুস্থ গরুর মুলত পায়ের ক্ষুরের মাঝখানে ঘাঁ বা ক্ষত থাকতে  পারে। সেটা গরুটিকে আপনার অপছন্দের তালিকায় ফেলে পারে। তবে সচরাচর প্রায় সব গরুর পায়ের ক্ষুর খুব ফ্রেশ থাকে।

নাকের নিচের ঘামঃ
সুস্থ গরুর একটি লক্ষন হল নাকের উপর (Muzzale) এ বিন্দু বিন্দু ঘামের মত ফোঁটা থাকে অথবা সেটা কিছুটা আর্দ্র থাকে। যদি পশুর শরীরে জ্বর বা অন্য কোন অসুস্থতা থাকলে তাহলে এই স্থানে শুষ্ক হয়ে যায়।

সুস্থ গরুর চোখ কি রকম?
সুস্থ গরুর চোখগুলো হবে উজ্জ্বল।চোখের পাতা থাকবে সামঞ্জস্যপূর্নভাবে প্রসারিত। চোখের আশপাশে কোন ধরনের ক্ষত বা পানির ধারার চিহ্ন থাকবে না। চোখে কোন ধরনের ঝিমুনি ভাব থাকবে না।গরুর চোখের মনির চার পাশের অংশটি হালকা গোলাপী বর্নের হয় । তবে সেটা যদি লাল দেখা যায় তাহলে ধরে নিতে  হবে চোখে কোন ধরনের প্রদাহ আছে।

গায়ের পশম ও লেজ কি রকম হবে?
গায়ের পশম যদি উস্কখুসকো হয় তাহলে এই গরুটিকে শতভাগ পছন্দের তালিকায় রাখা ঠিক হবে না। ভিডিও বা ছবি দেখে যখন আপনি গরু কিনবেন তখন চেষ্টা করবেন সব দিকের ছবি দেখে গরুটি কিনতে ।বিশেষ করে সামনের ,পিছনের ,ডানের ,বামের সম্পূর্ন ছবি অবশ্যই দেখতে হবে।তাহলে শরীরের যেকোন পাশে যেকোন ধরনের সমস্যা থাকলে তা দৃষ্টি গোচর হবে।হয়ত দেখা যাবে এক দিকে অন্য দিকে সর্বনাশ ।এ সর্বনাশ থেকে সাবধান হওয়ার জন্যই এই কথা বলা।এই সময় আপনারা  পশুর লেজটিও খেয়াল করে নিতে পারেন।ঠিক ঠাক আছে কিনা?

বুকের নিচে পরীক্ষাঃ
গরু বাচাইয়ের সময় সামনের দুই পায়ের মাঝখানে বুকের নিচের অংশটি খেয়াল করতে হবে।এই স্থান কোন অস্বাভাবিক ফোলা আছে কিনা।আর সামনের পা দুইটি অধিক প্রসারিত আছে কিনা।যদি বুকে কোন ধরনের ব্যাথা বা সমস্যা থাকে তাহলে গরু তার সামনে  পা দুটি একটু বাহির মুখি করে রাখার চেষ্টা করবে।তবে কিছু গরু স্বাভাবিক থাকলেও এই আচরন করে।

পেটের নীচের গঠন
এবার পেটের নিচের অংশটি খেয়াল করুন।যদি এটি অস্বাভাবিক ভাবে ঝুলে থাকে তাহলে ধরে নিতে হবে এই গরুর শরীরে চর্বির পরিমান বেশ হবে।একইভাবে পিছনের দিকে লেজের নীচের অংশে যেখানে অধিক মাংস থাকে সেখানে যদি বেশি ঝুলে থাকে তাহলে এই গরুর শরীরের অধিক চর্বিও থাকবে।

শ্বাস-প্রশ্বাসঃ
এবার আসুন ভিডিওতে গরুর শ্বাস প্রশ্বাস লক্ষ্য করি।যদি শ্বাস গ্রহন ও নিঃশ্বাস ত্যাগ ছন্দময় হয় তাহলে এটি পশুর সুস্থতার ইঙ্গিত দেয়।তবে শ্বাস প্রশ্বাস যদি খুব দ্রুত বা খুব ধীরে  হয় তাহলে এটি পশুর অসুস্থতা নির্দেশ করে।

এবার আসুন পশুর পাকস্থলী তথা পেটের দিকে নজর দেই।পেটের আকার শরীরে সাথে সামঞ্জস্যপুর্ন হতে হবে।পেট খুব বড় হলে ভড়িওর কারনে লাইভ ওয়েটে পাওয়ার ওজনের তুলনায় প্রকৃত ভক্ষন যোগ্য মাংসের পরিমাণ  অনেক কম হবে।তাছাড়া পেটে গ্যাস জমে যদি পেটে ফুলে সেটি পশুর অসুস্থতা নির্দেশ করে।

অধিক চর্বি
শরীর খুব বেশী থলথলে হলে সেই পশু থেকে আ[পনি ভাল মাংস পাবেন না ।অর্থাৎ ঐ পশুর শরীরে চর্বির পরিমান বেশ থাকবে ।তাছাড়া কেউ যদি অসাধু উপয়ে পশু হৃষ্টপুষ্টকরন করে থাকে তাহলে সেই পশূটিও নাদুশ নুদুশ থলথলে হতে পারে।তবে বুঝার সুবিধার জন্য বল যদি অসৎ উপয়ায় মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর ষ্টেরয়েড বা জাতীয় ঔষধ দিয়ে পশূ মোটাতাজাকরন করে থাকে তাহলে ঐ পশূটি হবে মেদামারা টাইপের অর্থাৎ আপনি পশুটির ভিডিও দেখলেই তা বুঝে যাবেন।সুস্থ পশু যেরকম প্রানবন্ত হয় এরা সে রকম হবে না।

পশুর কানঃ
ছবিতে বা ভিডিওতে পশূটির কান জোড়া খেয়াল করবেন।পরথম কথা হলে কানে কোন ধরনের কাটা ছেড়া,ফাটা আছে কিনা সেটা ক্রেতার চতুর চোখ এড়াতে পারে না।তবে এই ক্ষেত্রে একটি বিষয় লক্ষণীয় তা হল সুস্থ পশুর কানগুলো থাকবে খাড়া। এবং পরিবেশের যে কোন শব্দে সে সাড়া দিবে।আর যদি অসুস্থ পশু হয় তাহলে তার কান নিস্তেজ হয়ে ঝুলে পড়তে পারে।আর অসুস্থ পশুটি কান নাড়্বাতে অনিহা প্রকাশ করবে।আপনি পশুর ভিডিওটি কয়েকবার দেখলেই বিষয়টি স্পষ্ট বুঝতে পারবেন।

দাঁত দেখে বয়স নির্নয়
গরুর বয়স সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য আপনি বিক্রেতার কাছে পশুটির দাঁতে ছবি চাইতে পারেন।যদি নিচের পাটিতে মাঝ বরাবর দুইটি বড় দাঁত থাকে (Permanent Incisor Teeth) তাহলে আপনি ধরে নিতে পারেন পশুটি দুই বছর পার করেছে।দুই থেকে তিন বছরের গরু মোটামুটি বাজেটে ক্রয় করে লাভবান হতে পারেন।এই সময় তাদের মাংসের গুনগত মান ভাল থাকে।তাছাড়া এই বয়সে শরীরে চর্বির পরিমানও কম থাকেন।

নাক ও মুখ পরীক্ষাঃ
পশুর ছবি বা ভিডিও দেখার সময় খেয়াল করতে হবে নাক ,মুখ পরিষ্কার আছে কিনা? নাকে সর্দি থাকলে সেটা পশুর অসুস্থতা নির্দেশ করে।তাছাড়া মুখে অস্বাভাবিক ভাবে লালা ঝড়লে ধরে নেওয়া যায় মুখে কোন ধরনের ঘাঁ বা অন্য কোন ধরনের সমস্যা আছে।

চামড়ার ক্ষত পরীক্ষা
পশুর শরীরে কোন ক্ষত আছে কিনা তা পশুর বিভিন্ন দিক থেকে তোলা ছবি জুম করে দেখে নিশ্চিত হতে হবে।

সনাক্তকারী চিহ্ন
অনলাইনে গরু কেনার পর ডেলিভারী দেওয়ার সময় বিক্রেতা যাতে কোন ধরনের প্রতারনার আশ্রয় নিতে না পারে সে জন্য আপনি যে পশু টি পছন্দ করেছেন তার রঙ ,বুকের বেড়, দৈর্ঘ্য, উচ্চতা এবং নির্দিষ্ট কোন সনাক্তকরন চিহ্ন যা পশুর দেহে বিদ্যমান তা নির্দিষ্ট করে রাখতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here